হাতীবান্ধায় গার্মেন্টস কর্মীকে গণধর্ষণ, আটক ১

জিন্নাতুল ইসলাম জিন্না :: লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় প্রেমের ফাঁদে ফেলে এক গার্মেন্টস কমীকে গণধর্ষেণর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় বুলু নামের (৩৮) এক অভিযুক্তকে আটক করেছে পুলিশ।

শুক্রবার বিকেলে তাকে উপজেলার গেন্দুকড়ি এলাকা থেকে আটক করা হয়। আটককৃত বুলু ওই এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য আঃ রহমানের ছেলে বলে জানা গেছে।

বুধবার রাতে নওদাবাস এলাকার শালবনে ২২ বছর বয়সী ওই নারীকে বুলুসহ ৫ জন পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরদিন বৃহস্পতিবার ধর্ষণের শিকার ওই নারী হাতীবান্ধা থানা পুলিশের কাছে এসে অভিযোগ করলে শুক্রবার বিকেলে ধর্ষক বুলুকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পুলিশ ও ধর্ষিত গার্মেন্টস কর্মী জানায়, ঢাকায় একটি গার্মেন্টসে চাকুরীর সুবাধে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ডাকালিবান্দা বাজারের বস্ত্র ব্যবসায়ী মানিকের সাথে মুঠোফোনে পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের মাঝে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরে বিয়ের প্রলোভন পেয়ে বুধবার সকালে ঢাকা থেকে হাতীবান্ধা চলে আসে স্বামী পরিত্যক্ত ওই নারী। ওই দিন সকালে মানিক তাকে উপজেলার পারুলিয়া এলাকায় ঢাকা-বুড়িমারীগামি একটি নৈশকোচ থেকে নামিয়ে নিয়ে একটি বাড়িতে রাখে। পরবর্তীতে বুধবার সন্ধ্যার পর বিয়ের আয়োজনের কথা বলে মানিকের সহযোগি গেন্দুকুড়ি এলাকার মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত বুলু তাকে মোটরসাইকেল যোগে নওদাবাস এলাকার শালবনে নিয়ে যায়। সেখানে মানিক, বুলুসহ ৫ জন যুবক রাতভর তাকে গণধর্ষণ করে বলে সাংকাদিকদের জানায় থানা পুলিশের হেফাজতে থাকা ওই গার্মেন্টস কর্মী।

শুক্রবার বিকেলে হাতীবান্ধা থানা পুলিশ ধর্ষণের শিকার ওই নারীকে নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এসময় হাতীবান্ধা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নূর আলম বলেন, গণধর্ষণের ঘটনায় বুলু নামে এক ধর্ষককে আটক করা হয়েছে। বাকিদেরকেও গ্রেফতারে জোর চেষ্ট চলছে।

পরে বিকেলে ৫ টার দিকে হাতীবান্ধা থানার ওসি রেজাউল করিমের মুঠোফোনে কল দেয়া হলে তিনি দুই ঘন্টা পর সাংবাদিকদের তথ্য দেয়ার কথা জানান।

Pin It

Comments are closed.