লালমনিরহাটে বেসরকারি শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয় করণের দাবিতে অনশন

জিন্নাতুল ইসলাম জিন্না :: বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের ৫% বার্ষিক প্রবৃদ্ধি, বৈশাখী ভাতা, পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতাসহ মাধ্যমিক শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের দাবিতে অনশন ধর্মঘট পালিত হয়েছে। বুধবার জেলার প্রাণকেন্দ্র মিশনমোড় গোল চত্বরে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি (বাশিস) লালমনিরহাট জেলার শাখার আয়োজনে এ অনশন ধর্মঘট পালিত হয়।

অনশন চলাকালীন দুপুরের পর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান শিক্ষকদের জুস পান করিয়ে অনশন ভাঙান।

বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি (বাশিস) লালমনিরহাট জেলার শাখার সভাপতি খুরশিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনশন ধর্মঘটে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি (বাশিস) লালমনিরহাট জেলার শাখার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ, লালমনিরহাট সদর উপজেলা কমিটির সভাপতি খায়রুজ্জামান বাদল, হাতিবান্ধা উপজেলা কমিটির সভাপতি মজিবর রহমান প্রমুখ বক্তব্য দেন।

বক্তারা বলেন, আমরা শিক্ষকগণ নাকি মানুষ গড়ার কারিগর। অথচ সেই শিক্ষকদের প্রতি বর্তমান সরকারের কোনো নজর নেই। আমরা যারা মাধ্যমিক বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষকতা করে আসছি। সেই শিক্ষকদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং তাদের এমপিও ভুক্তসহ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের ৫% বার্ষিক প্রবৃদ্ধি, বৈশাখী ভাতা, পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা প্রদানের দাবি জানান।

তারা আরও বলেন, শিক্ষকদের দাবি মানতে বেশ কিছুদিন ধরে ১ দিনের কর্মবিরতি পালন ও দাবিসমূহের যৌক্তিকতা তুলে ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি/গভর্নিং বডি ও স্থানীয় সংসদ সদস্যদের সাথে মতবিনিময়, বৈশাখী উৎসবে ভাতা না দেয়ায় কালোব্যাজ ধারন ও প্রত্যেক জেলা সদরে প্রতীকী অনশন পালন করলেও সরকারের কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই। এর পরেও আগামী ১৪ মে’র মধ্যে তাদের দাবি মানা না হলে সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার হুমকি প্রদান করা হয়।

অনশন চলাকালে দুপুরের পর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান শিক্ষকদের জুস পান করিয়ে অনশন ভাঙেন এবং আগামী কয়েকদিনের মধ্যে তাদের দাবিসমূহ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট উপস্থাপন করে তাদের দাবি আদায়ে অনুরোধ জানাবেন বলে অঙ্গীকার করেন।

Pin It

Comments are closed.