লালমনিরহাটের এক গৃহবধুকে ঘরে আটকে রেখে অমানুষিক নির্যাতন

আসাদুল ইসলাম সবুজ :: যৌতুকের দাবিতে গৃহবধুকে ঘরের মধ্যে তালাবদ্ধ করে রেখে অমানুষিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। টানা দুইদিন ঘরের মধ্যে তালাবদ্ধ থাকা নির্যাতিত সেই গৃহবধু বর্তমানে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এঘটনায় নির্যাতিত গৃহবধুর ভাই লালমনিরহাট পৌরসভার উচাটারী এলাকার রশিদুল ইসলামের ছেলে রকিবুল ইসলাম বাদী হয়ে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, গত বছরের ২৮ অক্টোবর পারিবারিক ভাবে লালমনিরহাট পৌরসভাধীন উচাটারী এলাকার রশিদুল ইসলামের মেয়ে মর্জিনা পরভীনের সাথে কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ি উপজেলার গঙ্গারহাট এলাকার মৃত আব্দুল হোসেনের ছেলে রুবেল মিয়ার বিয়ে হয়। বিয়ের সময় মেয়ের সংসারের সুখের জন্য খুশি মনে প্রায় ৪ লক্ষাধিক টাকার বিভিন্ন উপহার দেয় মর্জিনার বাবা। এভাবে প্রথম দু’মাস ভালোই চলছিল তাদের সংসার। এরপর হঠাৎই যৌতুকের জন্য চাপ দেয়া হয় মর্জিনাকে। কিন্তু মর্জিনার বাবা যৌতুক দিতে অস্বীকৃতি জানালে নেমে আসে নির্যাতনের খড়গ। তবুও মর্জিনা নির্যাতন সহ্য করে সংসার টিকে রাখার জন্য স্বামীর বাড়িতে থাকতে চেয়েছিল। কিন্তু পাষন্ড স্বামী যৌতুকের নেশায় অত্যাচার আরো বাড়িয়ে দেয়। একপর্যায়ে মর্জিনাকে তালাবদ্ধ করে ঘরে আটকিয়ে রেখে নির্যাতন চালানো হয়। পরবর্তীতে খবর পেয়ে গেল ২১ ফেব্রুয়ারি মর্জিনার ভাই লোকজন ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিদের সহায়তায় মর্জিনাকে উদ্ধার করে প্রথমে ফুলবাড়ি উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে ও পরে লালমনিরহাট জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এবিষয়ে গৃহবধু মর্জিনা বলেন,‘ যৌতুকের জন্য তাকে অমানুষিক নির্যাতন চালিয়েছে তার স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন। তিনি ন্যায় বিচার চান।’ এবিষয়ে মর্জিনার স্বামী রুবেলের সাথে যোগাযোগের চেষ্ঠা করা হলেও তার ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে।

ফুলবাড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ এবিএম রেজাউল ইসলাম অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Pin It

Comments are closed.