রংপুরে বাল্য বিয়ে ঠেকালেন মেয়র

 

সবে সপ্তম শ্রেণিতে পড়ত মেয়েটি। বয়স সবে ১২। ছেলেটি স্থানীয় একটি কলেজের ছাত্র। প্রেমের সম্পর্কের পর বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেয় দুজনে। কিন্তু পরিবার রাজি ছিল না। কিন্তু পালিয়ে যায় দুইজন। পরে মেয়র শরফুদ্দীন আহমেদ ঝণ্টুর সহায়তা চান মেয়ের বাবা। মেয়র জানতে পারেন মেয়েটি অপ্রাপ্তবয়স্ক। এরপর নানা চেষ্টায় খুঁজে বের করে ঠেকিয়ে দেন এই বিয়ের চেষ্টা।

ছেলে ও মেয়ের পরিবারকে নিজ বাসায় ডেকে নিয়ে স্বজনদের কাছে তুলে দেন মেয়র ঝণ্টু। বৃহস্পতিবার এই ঘটনা ঘটে।

মেয়র ঝন্টু জানান, রংপুর মহানগরীর ধাপ চেকপোস্ট এলাকার ওই যুবকের সঙ্গে স্থানীয় একটি স্কুলের ছাত্রীর সম্পর্ক ছিল। গত ১২ আগস্ট বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় তারা। পরে মেয়েটির বাবা তার কাছে এলে তিনি বিষয়টি ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হারাধন রায় হারাকে জানিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলেন।

এরপর ওই কিশোরী ও যুবককে নগরীর বেনুঘাট থেকে উদ্ধার করে মেয়রের বাড়িতে নিয়ে যান হারাধন রায়।

মেয়র বলেন, ‘তাদের বাসায় নিয়ে আসার পর ছেলে-মেয়েদের পরিবারকে ডেকে পাঠাই এবং জানতে পারি মেয়েটির বয়স মাত্র ১২ বছর। যেহেতু বাল্যবিয়ে নিষিদ্ধ তাই বিয়ে বন্ধ করে উভয় পরিবারকে সতর্ক করে দিয়েছি।’

রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র ঝন্টু বলেন, ‘বাল্য বিয়ের বিরুদ্ধে গণসচেতনতা তৈরি ও সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলতে আমরা চেষ্টা করছি। এ জন্য সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।

Pin It

Comments are closed.