ভারতে খাবারের লোভ দেখিয়ে কুকুরের সাথে যৌনতা!

ভারতে খাবারের লোভ দেখিয়ে কুকুরের সাথে যৌনতা!

 

‘পশুপ্রেমী’ হিসেবেই পাড়ায় তার পরিচিতি ছিল। নিজের ভাগের খাবার থেকেও নাকি রাস্তার কুকুরদের যত্ন করে খাওয়াতেন। কিন্তু আচমকা গোটা দৃশ্যপট বদলে গেল। পশুপ্রেমী মানুষটিই কিনা খাবারের লোভ দেখিয়ে বাড়িতে এনে পাড়ারই এক কুকুরের উপরে যৌন নির্যাতনের সময় হাতেনাতে ধরা পড়ে গেলেন। সোমবার রাতে এই কীর্তি ফাঁস হওয়ায় পর তাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অস্বাভাবিক যৌন সম্পর্ক এবং পশুনির্যাতনের ধারায় তাকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতে পাঠিয়েছেন আদালত। ঘটনাটি ভারতের নদিয়ার তাহেরপুরের।

পুলিশ সূত্রে খবর, গ্রেফতার হওয়া ৬১ বছরের নরেন চক্রবর্তী পেশায় পুরোহিত। তাহেরপুর থানার কালিনারায়ণপুরে পাকা বাড়িতে সস্ত্রীক বাস করেন তিনি। এক ছেলে কর্মসূত্রে বাইরে থাকেন। প্রতিবেশরিা পুলিশকে জানিয়েছে, বরাবরই পশুদের প্রতি ভালোবাসা ছিল তার। রোজই পাড়ার কুকুরদের নিয়ম করে খাওয়াতেন। স্বাভাবিকভাবেই নরেনের ভক্ত হয়ে উঠেছিল আশপাশের যত রাস্তার কুকুর।

এভাবেই চলছিল। তবে বছর খানেক আগে থেকে তার রুটিনে সামান্য বদল আসে। এবার আর রাস্তাতেই সেই ‘ভালোবাসা’ আটকে থাকেনি। খাওয়ার লোভ দেখিয়ে তিনি তাদের নিজের বাড়িতে নিয়ে আসতে শুরু করেন। এক একদিন এক একটা কুকুরকে। তারপর ঘরের মধ্যে ঢুকিয়ে দরজা বন্ধ করে দিতেন। আর ঘরের ভিতরে কুকুরটাকে খেতে দেওয়ার অছিলায় যৌন নির্যাতন চালাতেন বলে অভিযোগ করেছেন নরেন চক্রবর্তীর স্ত্রী।

এই ঘটনা নাকি কয়েক বছর ধরেই চলছিল। প্রথম দিকে বন্ধ ঘরের ভিতর থেকে কুকুরের গোঙানির আওয়াজ পেলেও তার স্ত্রী বিষয়টাকে খুব একটা গুরুত্ব দিতেন না। কিন্তু রোজ একই ঘটনা ঘটায় তার সন্দেহ হতে শুরু করে। কেন কুকুরেরা ওইভাবে চিৎকার করে তা তিনি জানতে চাইলে বারবারই নরেন এড়িয়ে যেতেন। তার স্ত্রী পুলিশকে জানিয়েছেন, একদিন তিনি জানলা দিয়ে উঁকি মেরে দেখে ফেলেন সেই নৃশংস দৃশ্যটি। নরেন তখন কুকুরের সঙ্গে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত। স্বামীর প্রতি তীব্র ঘৃণার জন্ম নিলেও, লোকলজ্জার ভয়ে কাউকে বিষয়টি খোলসা করতে পারেননি। স্বামীকে তিরস্কার করেন। কিন্তু হিতে বিপরীত হয়। নরেন স্ত্রীকে তার পর থেকেই মারধর করতে শুরু করেন বলে অভিযোগ। হুমকিও দিতে থাকেন। ভয়ে এবং লোকলজ্জায় বিষয়টি এতদিন নিজের মনেই চেপে রেখেছিলেন স্ত্রী। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সহ্য করতে না পেরে সবাইকে জানিয়ে দেন।

গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আবার একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হলে তিনি চুপিসারে গিয়ে প্রতিবেশীদের খবর দেন। খবর দেওয়া হয় পুলিশেও। পুলিশ তৎক্ষণাৎ বাড়ির চারপাশ ঘিরে ফেলে। হাতেনাতে পাকড়ও করা হয় তাকে। তার ঘর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বিধ্বস্ত এক কুকুরকেও। ৩৭৭ ধারায় অস্বাভাবিক যৌনতার অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাণাঘাট মহকুমা আদালতে তোলা হতে বিচারক তার ১৪ দিনের জেল হাজতের নির্দেশ দেন।
সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

Pin It

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।