বিয়ের দাবিতে শিক্ষকের বাড়িতে ছাত্রীর অবস্থান

নীলফামারীর ডিমলায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে অন্তঃসত্ত্বা করার অভিযোগ উঠেছে প্রাইভেট শিক্ষককের বিরুদ্ধে। শনিবার সকাল থেকে ওই ছাত্রী বিয়ের দাবিতে অভিযুক্ত শিক্ষকের বাড়িতে অবস্থান করছে।

এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার দক্ষিণ খড়িবাড়ী নিম্ন মাধ্যমিক উচ্চ বিদ্যালয়ের ওই ছাত্রী একই এলাকার মৃত মান্নান মুন্সীর পুত্র গোলাম রাব্বানীর (২২) কাছে প্রাইভেট পড়তো।

বিয়ের প্রালোভন দেখিয়ে রাব্বানী ছাত্রীটির সঙ্গে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। এক পর্যায়ে ওই ছাত্রী ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। আরও পরে তাকে বিয়ে করবে এ আশ্বাস দিয়ে ওই প্রাইভেট শিক্ষক গত ১১ আগস্ট ডিমলা হাসপাতালে নিয়ে ছাত্রীটির গর্ভপাত করায় বলে তার পরিবার জানায়।

ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী জানায়,অভিযুক্ত শিক্ষক গোলাম রাব্বানী গত ৮ মাস আগে তার বাসায় এসে প্রাইভেট পড়াতো। এর দুই মাস পর জানায়, বাসায় এসে পড়ানোর মতো তার সময় নেই। ছাত্রীকে তার বাসায় গিয়ে পড়ার কথা বলে।

এরপর থেকেই প্রাইভেট পড়তে ছাত্রীটি তার বাসায় যায়। কিন্তু পড়ানোর বদলে তাকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শাররীক সম্পর্ক গড়ে তুলে। এক পর্যায়ে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে বেড়ানোর কথা বলে ডিমলা হাসপাতালে নিয়ে নার্স দিয়ে তার গর্ভপাত ঘটায়। এরপর থেকে ওই লম্পট শিক্ষক গা ঢাকা দিয়েছে।

শনিবার থেকে ওই প্রাইভেট শিক্ষকের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অবস্থান করছে ছাত্রীটি। ওই শিক্ষকের বড় ভাই আবদুর রাজ্জাক বলেন, যেহেতু মেয়েটি বয়স কম তাই কীভাবে বিয়ে দেই।

এ ব্যাপরে টেপাখড়িবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম শাহীন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনার পর থেকে প্রাইভেট শিক্ষক গা ঢাকা দিয়েছে।

Pin It

Comments are closed.