পাটগ্রামে ৩ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার!

নিউজ ডেস্ক : এবার ভয়ানক এক লজ্জার ইতিহাসের সাক্ষী হলো লালমনিরহাটের পাটগ্রাম। হারুন (১৮) নামের এক পাষণ্ডের বিকৃত লালসার শিকার হয়ে হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছে মাত্র ৩ বছরের এক শিশু! মানবতাকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে আরও একদফা প্রশ্নবিদ্ধ হলো এই সমাজের বিবেক। ঐ নরপশুর কাছে ধর্ষণের শিকার হবার পর রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটিকে ভর্তি করানো হয়েছে হাসপাতালে।

শনিবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুর ১ টার দিকে উপজেলার জোংড়া ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের গুরুপাড়া এলাকায় এ শিশু ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটে। একই এলাকার হাবিবুরের ছেলে পাষণ্ড হারুন (১৮) নিজ দোকানের চকলেটের লোভ দেখিয়ে শিশুটিকে ধর্ষন করে।

পরে রক্তাক্ত অবস্থায় গুরুতর আহত ওই শিশুটিকে উদ্ধার করে পাটগ্রাম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এসময় কর্তব্যরত ডাক্তার জরুরী ভিত্তিতে পরীক্ষা ও উন্নত চিকিৎসার জন্য শিশুটিকে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে রেফার্ড করেন।

শিশুটিকে সঙ্গে নিয়ে পুলিশ হেফাজতে মা য্যোতিকা রানী বাবা শ্যামল চন্দ্র রাত ১১ টার পরে পাটগ্রাম হাসপাতাল ত্যাগ করেন।

এজাহার সুত্র ও পারিবারিক তথ্যে জানা গেছে, শনিবার দুপুরে কোন এক সময় একই এলাকার হাবিবুরের ছেলে হারুন (১৮) নিজ দোকানের চকলেট দিয়ে শিশুটিকে ফুসলিয়ে দোকানের আড়ালে নিয়ে ধর্ষন করে। একপর্যায়ে শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়লে রক্তাক্ত অবস্থায় দোকানের পাশে বসিয়ে রেখে পালিয়ে যায় ঐ পাষণ্ড ধর্ষক ।

রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটির কান্নাকাটি আর আর্তচিতকারে ছুটে আসে এলাকাবাসী ও পরিবারের লোকজন। শিশুটির শারীরিক অবস্থা দেখে প্রাথমিকভাবেই পরিবার ও এলাকাবাসী বুঝে যায় কি ভয়ংকর নির্মমতার শিকার হয়েছে অবোধ শিশুটি। কিছুতেই কান্না থামানো যাচ্ছিলোনা আতংকগ্রস্থ শিশুটির। রক্তাক্ত অবস্থায় সাথে সাথেই শিশুটিকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

পাটগ্রাম থানার ইনভেস্টিগেশন অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মাহফুজ আলম জানান, পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা রুজু করা হয়েছে। পুলিশ খবর পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে শিশুটির চিকিৎসার ব্যবস্থা ও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

Pin It

Comments are closed.