নতুন বগিতে সাজবে লালমনি এক্সপ্রেস

লালমনি এক্সপ্রেস আন্তনগর ট্রেনের জন্য নতুন বগি বানাচ্ছে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা। পুরোনো ১৮টি বগি ভেঙে গত জুলাই মাস থেকে নতুন বগি নির্মাণের কাজ শুরু হয়। আগামী জানুয়ারি মাসে ১২টি বগির কাজ শেষ হবে।

সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা সূত্র জানায়, উত্তরাঞ্চলের লালমনিরহাট থেকে ঢাকা অভিমুখে চলাচলকারী লালমনিরহাট এক্সপ্রেস অনেক পুরোনো। ফলে এটি জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে, গতিও কমে গেছে। যাত্রীদের সুবিধার কথা ভেবে ওই ট্রেনবহরে অপেক্ষাকৃত উন্নতমানের বগি সংযোজন করার চিন্তাভাবনা করেছে কর্তৃপক্ষ। অবশ্য এই অঞ্চলের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে এ দাবি জানিয়ে আসছিল।

বাংলাদেশ রেলওয়ে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় পুরোনো ১৮টি বগি পাঠিয়েছে। জার্মান প্রযুক্তির এসব বগি ইরানে তৈরি করা হয়েছে। এর আগে ওই বগিগুলো ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে একটি আন্তনগর ট্রেনে ব্যবহার করা হতো। ওই বগিগুলোর অবকাঠামো সম্পূর্ণ খুলে ফেলা হচ্ছে। এসব বগি নতুন করে নির্মাণ করা হবে। আর প্রতিটি বগি নির্মাণে ব্যয় হবে প্রায় ৭০ লাখ টাকা।

কারখানা সূত্র জানায়, আগামী জানুয়ারি মাসে প্রথমে ১২টি বগি রেলওয়ের ট্রাফিক বিভাগকে হস্তান্তর করা হবে। এগুলো দিয়ে লালমনি এক্সপ্রেস নতুন সাজে সাজবে। তবে এক্সপ্রেসের রং কী হবে—তা এখনো নিশ্চিত করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। বাকি ৬টি বগি পরের নির্দেশ অনুযায়ী হস্তান্তর করা হবে।

১৯ জুলাই বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (রোলিং স্টক) মো. শামসুজ্জামান কাজ দেখতে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় আসেন। তাঁর সঙ্গে ছিলেন পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের প্রধান যন্ত্র প্রকৌশলী (সিএমই) ইফতেখার হোসেন, প্রধান সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক (সিওএস) বেলাল হোসেন সরকার প্রমুখ।

সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক (ডিএস) মুহাম্মদ কুদরত-ই খুদা বলেন, নতুন বগিগুলোর নির্মাণ কাঠামোতে পরিবর্তন আসছে। ফলে দুর্ঘটনার ঝুঁকি কমবে আর সেই সঙ্গে ট্রেনের গতিও বাড়বে। এতে চেয়ার কোচ সংযোজন করা হচ্ছে। এর মধ্যে একটি শীতাতপনিয়ন্ত্রিত বগিও থাকবে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (এডিজি, আরএস) মো. শামসুজ্জামান গতকাল বৃহস্পতিবার মুঠোফোনে বলেন, লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনকে আধুনিক করতে ওই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। প্রথমআলো

Pin It

Comments are closed.