ছেলে দেখিয়ে মেয়ে কেন, সন্তানকে স্তন্যপানেও নারাজ মা

মাত্র চার দিন আগে সরকারি হাসপাতালে যে কন্যাসন্তান জন্মেছে, তাকে অনায়াসে পরিত্যাগ করল পরিবার। এমনকী মাতৃদুগ্ধ থেকেও তাকে বঞ্চিত করা হয়েছে। কারণ, ওই সদ্যোজাতের মায়ের দৃঢ় ধারণা, কন্যাসন্তান তাঁর নয়। তিনি ছেলের জন্ম দিয়েছেন। পরে, হাসপাতালেরই কেউ তাঁর সন্তান পালটাপালটি করেছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ যদিও এই অভিযোগ মানতে চায়নি। তবে, ভুল যে তাদের তরফে একটা হয়েছিল, তা স্বীকার করে নেয় কর্তপক্ষ।

কী ভুল? মঙ্গলবার বেলায় হায়দরাবাদের সরকারি মেটারনিটি হাসপাতালে রজিতা ও রমা নামে দুই মহিলা মাত্র কয়েক মিনিটের ব্যবধানে সন্তানপ্রসব করেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সরল স্বীকারোক্তি, তাঁরাই ভুল করে এক শিশুকে সম্পূর্ণ অন্য পরিবারের হাতে তুলে দেন।

কী করে হল সেই ভুল? আর বিদ্যাবতী নামে এক সিনিয়র ডাক্তার জানান, তাঁদের হাসপাতালে রোজ অন্তত ৪০টি শিশুর জন্ম হয়। মঙ্গলবার বেলায় রমার পরিবারকে ডেকেছিলেন নার্স। সেখানে রজিতার মা ও কাকিমা চলে এলে, কিছু জিজ্ঞাসাবাদ না-করে, তাঁদের হাতেই সদ্যোজাত পুত্রসন্তানকে তুলে দেন। কিছুক্ষণ পরে রজিতা কন্যাসন্তানের জন্ম দিলে, তাঁর পরিবার কন্যাসন্তানকে নিতে অস্বীকার করে। এরপরই তারা সোজা থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করে।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এর পরেই দুই শিশুকে হেফাজতে নেয়। তাদের মায়ের কাছে রাখা হয়নি। রজিতা তাঁর মেয়েকে স্তন্যপান করাতে অস্বীকার করেন। তাঁর বক্তব্য, ‘আমি কেন শিশুকন্যাকে দুধ খাওয়াতে যাব? আমাকে তো বলা হয়েছে আমি পুত্রসন্তানের জন্ম দিয়েছি।’ হায়দরাবাদ থেকে ১০০ কিলোমিটার দূরে, মহবুবনগর থেকে ভর্তি হয়েছিলেন রজিতা। ১৪ মাস আগেই তাঁর একটি কন্যাসন্তান হয়েছে। এটি তাঁর দ্বিতীয় সন্তান।

এদিকে রমা তাঁর পুত্রসন্তান ফেরত চেয়েছেন। তাঁর কথায়, পুত্র-কন্যা এসবে আমার কিছু এসে যায় না। যেহেতু আমি পুত্রসন্তানের জন্ম দিয়েছেন, তাই তাকেই স্তন্যপান করাতে চাই। রজিতা জানান, কন্যাসন্তানকে দুধ দিতে অস্বস্তি বোধ হচ্ছে বলেই তিনি খাওয়াচ্ছেন না। ফলে, হাসপাতালের কর্মী-নার্সরাই দুই শিশুর দেখভালের দায়িত্ব নিয়েছেন।

সূত্র: এইসময়

Pin It

Comments are closed.