কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স: প্রতিমন্ত্রীর পরিদর্শনে পাল্টে গেল দৃশ্যপট

কালীগঞ্জ হাসপাতালের অন্তহীন সমস্যার চিত্র তুলে ধরে গনমাধ্যমে খবর প্রকাশের পর কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি সমাজ কল্যান প্রতিমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ গতকাল মঙ্গলবার পরিদর্শনে যান এ হাসপাতালে।

প্রতিমন্ত্রীর আগমন শুনে রীতিমত হৈচৈ পড়ে যায় পুরো হাসপাতাল জুড়ে। সবাই মহা ব্যস্থ হয়ে পড়েন নিজের দায়িত্ব কর্তব্য পালনে। শুধু কর্তব্য পালনই নয় , হাসপাতালটিও ধুয়ে মুছে পরিস্কার করাও হয়েছে। সাটানো হয়েছে সিটিজেন চার্টার। মাত্র কয়েক ঘন্টার মধ্যে সচল করা হয়েছে বিদ্যুৎ ও পানি সরবরাহ। রোগীদের কক্ষে ঘুরতে শুরু করেছে বৈদ্যতিক পাখা। কর্মকর্তা কর্মচারীরাও শতভাগ উপস্থিত নির্দিষ্ট সময়ের আগেই।
সব মিলে কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে পাল্টে গেছে পুরো হাসপাতালের দৃশ্যপট। দেখে বোঝার উপায় নেই যে একদিন আগে এ হাসপাতালে স্বাস্থ্য সেবা পাওয়াটা কতটু কষ্টকর ছিল।

রোগীরা জানান, মন্ত্রী আসার কথা শুনেই চিকিৎসক, নার্স থেকে শুরু করে সকলেই রোগীর সেবা নিয়ে ব্যস্থ হয়ে পড়েন। এখন আর নার্সদেরকে ডাকতে হয় না। নার্স ও চিকিৎসকরাই পৌছে যাচ্ছে রোগীর ব্যডে। তারা বলেন, মন্ত্রীর হঠাৎ হাসপাতাল পরিদর্শনে বদলে যাওয়া দৃশ্যপট যেন অব্যহত থাকে এমনটা আশা করেন ভুক্তভোগী রোগীরা।

সমাজ কল্যান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ এমপি এলাকায় এসে হাসপাতালের বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে রোগীদের দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে, এমন সমস্যার কথা জানতে পেরে তিনি গত মঙ্গলবার সকালে হাসপাতালে ছুটে যান। বরাদ্দ পাওয়া ৪২টি ফ্যান প্রতিস্থাপনে বিলম্ব হওয়ায় অসন্তুস প্রকাশ করেন। উপজেলা হাসপাতাল গুলোর সেবার মান বাড়াতে হবে। চিকিৎসকদেরকে কর্মস্থলে থেকে আরো আন্তরিকতার সাথে কাজ করতে পরামর্শ দেন। কেউ দায়িত্বে অবহেলা করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও মন্ত্রী সকলকে সতর্ক করে দেন।

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ আহসান হাবীব জানান, হাসপাতালে প্রয়োজনীয় জনবল কাঠামো অনুযায়ী ৫০ শয্যার এ হাসপাতালে কর্মকর্তাসহ ২৮জন চিকিৎসক থাকার কথা থাকলেও রয়েছেন মাত্র ১২জন। এক্সরে মেশিন সচল থাকলেও টেকনিশিয়ান নিজ এলাকা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেষণে রয়েছেন। নতুন আল্ট্রাসনোগ্রাম মেশিন সরবরাহ হলেও কেবল পরিচালনাকারীর অভাবে তা কাজে আসছে না।

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রুস্তম আলী বলেন, আমি নতুন এসেছি। হাসপাতালের নানাবিধ সমস্যার কথা মন্ত্রী মহোদয়কে মৌখিক ভাবে অবগত করিয়েছি। খুব দ্রুত হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা আহবানের মাধ্যমে জনবল সংকট ও অন্যান্ন সমস্যাগুলোর সমাধানের উদ্যোগ নেয়া হবে।

Pin It

Comments are closed.