কালীগঞ্জে স্কুলের তহবিল থেকে টাকা ধার না দেয়ায় প্রধান শিক্ষককে জুতাপেটা

স্কুলের তহবিল থেকে টাকা ধার না পেয়ে প্রধান শিক্ষককে প্রকাশ্যে জুতাপেটা করার অভিযোগ উঠেছে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা কমিটির সভাপতির ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আতাউউজ্জামান রঞ্জুর বিরুদ্ধে।

ঘটনাটি ঘটেছে লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার গোপালরায় পঞ্চপথী উচ্চ বিদ্যালয়ে।

এদিকে দায়ী ব্যক্তির শাস্তি ও অপসারণের দাবিতে সোমবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস বর্জন করেছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

অভিযুক্ত রঞ্জু কাকিনা ইউনিয়ন পরিষদের ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বলে জানা গেছে।

একাধিক শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্কুলটির তহবিলে থাকা দেড় লাখ টাকা বেশ কয়েকদিন ধরে ধার হিসেবে চাচ্ছিলেন রঞ্জু। কিন্তু প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম এভাবে টাকা দিতে অপারগতা জানিয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভায় বিষয়টি সমাধানের পরামর্শ দেন।

ফলে গত রোববার বিকালে সভা ডাকা হয়। সভায় উপস্থিতরা রঞ্জুর চাপে একপর্যায়ে তাকে ৫০ হাজার টাকা ধার দেয়ার বিষয়ে একমত হন প্রধান শিক্ষক। কিন্তু বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি তিনি। এতে তিনি উত্তেজিত হয়ে রেজুলেশন বইয়ের কয়েকটি পাতা ছিঁড়ে ফেলেন এবং জুতা খুলে সবার সামনেই প্রধান শিক্ষককে পেটাতে থাকেন।

এসময় প্রধান শিক্ষককে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও নানাভাবে হুমকিও দেন স্কুল কমিটির সভাপতি ও আওয়ামী লীগ নেতা।

ওইদিনের সভায় উপস্থিত থাকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আরজুফা ইয়াসমীন মিনু অভিযোগ করেন, সভায় ৫০ হাজার টাকা দেয়ার কথা বলায় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি স্যান্ডেল খুলে প্রধান শিক্ষককে মারতে থাকেন এবং তাকেসহ অপর শিক্ষকদেরও দেখে নেয়ার হুমকি দেন।

প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম অভিযোগ করে বলেন, ‘স্কুলের তহবিলে থাকা দেড় লাখ টাকা কয়েকদিন ধরে ধার নিতে চাপ দিচ্ছিলেন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রঞ্জু। আমি তার কথায় রাজি না হয়ে কমিটির সভায় বিষয়টি নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বলি। কিন্তু গত রোববারের সভায় তাকে ৫০ হাজার টাকা দেয়ার সিদ্ধান্ত হলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে রেজুলেশন বই ছেঁড়ার পাশাপাশি আমাকে স্যান্ডেল খুলে এলাপাথাড়ি মারতে থাকেন। পরে অন্যরা আমাকে রক্ষা করেন।’

বর্তমানে তিনি বিভিন্নভাবে হুমকির সম্মুখীন বলেও অভিযোগ করেছে প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম।

এদিকে ওই ঘটনার প্রতিবাদে সোমবার থেকে ক্লাসবর্জন শুরু করেছে বিদ্যালয়টির শিক্ষক- শিক্ষার্থীরা। সভাপতির শাস্তি ও অপসারণ দাবিতে তারা সোমবার ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন করেছেন।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে রঞ্জু শিক্ষককে জুতাপেটাসহ লাঞ্ছিত করার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘স্কুলের হিসাব-নিকাশ নিয়ে গত রোববারের মিটিংয়ে প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে একটু মনমালিন্য হয়েছে মাত্র।’

কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. শাহীনুর আলম বলেন, ‘বিষয়টি জানতে পেরে প্রধান শিক্ষককে আইনের আশ্রয় নেয়ার পরামর্শ দেয়ার পাশাপাশি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে দ্রুত সরেজমিন তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।’

Pin It

Comments are closed.