আদিতমারী থানায় এক পুলিশের হাতে অপর পুলিশ আহত!

 

লালমনিরহাটের আদিতমারী থানায় পুলিশ ভ্যানের চালক মাজহারুল ইসলাম হাতে অপর আমিনুল ইসলাম(৩৫) নামে এক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

শনিবার(১৩আগষ্ট) রাত সাড়ে ৮টার দিকে লালমনিরহাট-বুড়িমারী মহাসড়কের আদিতমারী থানা চত্ত্বরে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও আহত পুলিশ সদস্য জানান, শনিবার সন্ধ্যায় সরকারী পুলিশ ভ্যানে আসামী আদালতে পৌছে থানায় ফিলছিল একদল পুলিশ সদস্য।

এ সময় ভ্যাপসা গরম থেকে বাঁচতে ভ্যানের পিছনে বসা কনস্টবলরা ভ্যানের ছাউনির হুপ খুলে দেয়। পরে ভ্যানটি থানা চত্ত্বরে পৌছলে গাড়ি চালক পুলিশ কনস্টবল মাজহারুল ইসলাম হুপ খুলে রাখার জন্য বাকী সদস্যদের গালমন্দ করেন।

এর এক পর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে গাড়ি চালক মাজহারুল ইসলাম( যার কনস্টবল নং ১৯০) অপর এক পুলিশ কনস্টবল আমিনুল ইসলামকে(যার কনস্টবল নং ২১১) গলা চেপে ধরে সজোড়ে ধাক্কা দেয়।

এতে আমিনুল ইসলাম গলায় ও কোমড়ে প্রচন্ড আঘাত পান। পরে সঙ্গিয় পুলিশ সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসাপত্র নিয়ে আহত পুলিশ সদস্য আমিনুলকে থানার ব্যারাকে রাখা হয়।

হাসপাতালে আহত আমিনুলের ছবি তুলতে গেলে সঙ্গিয় পুলিশ সদস্যরা সাংবাদিকদের ছবি তুলতে বাঁধা দেন।
আহত আমিনুল ইসলাম জানান, তার বুকে গলায় ও কোমড়ে প্রচন্ড ব্যাথা হচ্ছে। তিনি এর সুষ্ঠ বিচার দাবি করেন।

নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক একাধিক পুলিশ কনস্টবল ও অফিসার ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, গাড়ি চালক মাজহারুল ইসলাম শুধু এ ঘটনাই নয়, ইতিপূর্বেও অনেক পুলিশ সদস্যদের গালমন্দ ও লাঞ্চিত করেছে। তারাও সুষ্ঠ বিচারের দাবি জানান।

আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বরত উপ সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার আব্দুস সালাম শেখ জানান, আহত পুলিশ সদস্য গলায়, বুকে ও কোমড়ে আঘাত পেয়েছেন। চিকিৎসাপত্র দিয়ে থানায় পাঠানো হয়েছে।

আদিতমারী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) হরেশ্বর বর্ম্মন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ অনাকাংখিত ঘটনার কারন খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আহত আমিনুলকে বিশ্রামে রাখা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

লালমনিরহাট পুলিশ সুপার এসএম রশিদুল হক বলেন, এমন ঘটনা হলে সেটা দুঃখজনক। তবে খোজ নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

Pin It

Comments are closed.