আদিতমারীতে কলেজ ছাত্রী-বখাটে আপত্তিকর অবস্থায় আটক

জিন্নাতুল ইসলাম জিন্না :: লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে শনিবার দুপুরে আপত্তিকর অবস্থায় আটক হন কলেজের ছাত্রী ও বহিরাগত এক বখাটে।

রহস্যজনক কারনে কোন শাস্তি ছাড়াই ওই বখাটেকে ছেড়ে দেয়ায় অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ফুসে উঠেছে সাধারন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

জানা যায়, শনিবার দুপুরে বৃষ্টির সময় শিক্ষার্থীরা পাশের একটি নির্জন শ্রেনী কক্ষে কলেজের একাদশ শ্রেনীর এক ছাত্রীকে আদিতমারী উপজেলার ভাদাই সজিব বাজার এলাকার হযরত আলীর ছেলে বখাটে মোরশেদুলকে (১৯) অনৈতিক কাজে লিপ্ত থাকতে দেখতে পান। খবর পেয়ে কলেজ অধ্যক্ষ শরওয়ার আলম তাদেরকে আপত্তিকর অবস্থা হাতে নাতে ধরে ফেলেন।

এ ঘটনায় কলেজের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা বখাটের বিচার দাবিতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। কিন্তু রহস্যজনক কারনে অধ্যক্ষ কোনরুপ বিচার না করেই বখাটে মোরশেদুলকে ছেড়ে দেন এবং অনৈতিক কাজে সহযোগিতা করার দায়ে ওই ছাত্রীকে বহিস্কার করার ঘোষনা দেন। তবে তারা আর এমন কাজ করবে না মর্মে স্থানীয় ইউপি সদস্য ফারুক মিয়া দায়িত্ব নিয়ে ওই ছাত্রীকে জিম্মায় নিলে বহিস্কারাদেশ থেকে মুক্তি পায় ওই ছাত্রী।

ছাত্রীকে জিম্মা নেয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে মহিষখোচা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ফারুক মিয়া জানান, চরিত্র গঠনের কারখানা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এমন কাজ কখনই মেনে নেয়া যায় না। বখাটে যুবককে বিনা বিচারে ছেড়ে দিয়ে লাঞ্চিত ছাত্রীকে উল্টো বহিস্কারের হুমকী দেয়াটা অযৌক্তিক। তিনিও এর সুষ্ঠ বিচার দাবি করেন।

মহিষখোচা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ শরওয়ার আলম জানান, নির্জন কক্ষে বসে গল্প করার কারনে তাদেরকে শাসন গর্জন করে উভয়ের অভিভাবকের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। এর বাহিরে তিনি কোন কথা বলতে রাজি হন নি।

Pin It

Comments are closed.