আদিতমারীতে অক্টোবর মাসের চাল থেকে বঞ্চিত দরিদ্ররা

নিউজ ডেস্ক: লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের হতদরিদ্ররা অক্টোবর মাসের ১০ টাকা কেজির চাল থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। অভিযোগ উঠেছে, ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান সুবিধাভোগীদের সংশোধিত তালিকা নির্দিষ্ট সময়ে জমা দিতে না পারায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

উপজেলা খাদ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, সুবিধাভোগীদের আগের তালিকায় সচ্ছল ও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের নাম ছিল। সেসব নাম তালিকা থেকে বাদ দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। সংশোধিত তালিকা প্রণয়নের জন্য এক সপ্তাহের বেশি চাল বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত রাখা হয়। ইউপি কার্যালয় সুবিধাভোগীদের এ তালিকা তৈরি করে। ইউপি সচিব বিষয়টি সমন্বয় করেন। পরে উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তালিকাটি অনুমোদন করেন।

নিয়ম অনুযায়ী, মাসের চাল মাসেই তুলতে হবে। প্রতি সপ্তাহের শুক্র, শনি ও মঙ্গলবার এ চাল বিতরণ করা হবে। ডিলাররা সুবিধাভোগীদের প্রতি সপ্তাহে ভাগে ভাগে চাল বিতরণ করেন।

এ উপজেলার আটটি ইউনিয়নের মধ্যে সাতটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরা সুবিধাভোগীদের তালিকাটি যথাসময়ে সংশোধন করে পাঠান। কিন্তু গত রোববার বিকেলে মহিষখোচা ইউপির এ তালিকাটি জমা দেওয়া হয়। কিন্তু এ মাসে চাল বিতরণের সময় শেষ। মঙ্গলবার থেকে নভেম্বর মাস শুরু। ফলে মহিষখোচা ইউনিয়নের ১ হাজার ২৫৭ জন কার্ডধারী অক্টোবর মাসের চাল থেকে বঞ্চিত হলেন।

ইউনিয়নের এক ডিলার বলেন, চেয়ারম্যান ও সচিবের গাফিলতির কারণে এ মাসে গরিবেরা ওই চাল থেকে বঞ্চিত হলেন।

মহিষখোচা ইউপি চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক হোসেন চৌধুরীর মুঠোফোনে গতকাল রোববার সন্ধ্যায় একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। সচিব আতিকুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি।

উপজেলা খাদ্যনিয়ন্ত্রক এ টি এম সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী বলেন, মহিষখোচার ওই বরাদ্দ ফেরত গেছে। তাঁরা বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন।

Pin It

Comments are closed.